হুইল চেয়ার পেয়ে অসহায় বৃদ্ধা রহিমা বেগম আশার আলো দেখছে

শেয়ার করুন

‘পঞ্চগড়ে অসহায় দিনযাপন  বৃদ্ধা রহিমার’ শিরোনামে
বরেন্দ্র নিউজে প্রকাশিত সংবাদটি মোঃ জহিরুল  ইসলাম নামের এক ব্যক্তির নজরে আসে তার ফলশ্রুতিতে রহিমাকে একটি হুইল চেয়ার ব্যবস্থা করে দেন। তিনি নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক হওয়ায়  দৈনিক আমার সময় ও বরেন্দ্র নিউজের প্রতিনিধি মোঃ একরামুল হক মুন্না ও দৈনিক সময়ের আলো পঞ্চগড় প্রতিনিধি মোঃ রাশেদুজ্জামান এর সহযোগিতায় রহিমাকে একটি হুইল চেয়ার প্রদান করেন ।

আজ মঙ্গলবার (২০ জুলাই ) পঞ্চগড় সদর উপজেলার ৩নং সদর ইউনিয়ন পরিষদ এর ভুসিভিটা গ্রামে রহিমাকে  হুইল চেয়ারটি তুলে দেয়া হয় । চেয়ারটি হাতে পেয়ে বৃদ্ধা প্রতিবন্ধী রহিমা বেগম জীবন চলার পথে আশার আলো দেখছেন।

এবিষয়ে রহিমা বেগম এর ভাগ্নি নুরবানু তিনি জানান , ‘ইতোপূর্বে আমার খালার জন্য একটি হুইল চেয়ার  সুবিধা পাওয়ার জন্য স্থানীয় জন প্রতিনিধি এবং প্রশাসনের দ্বারে দ্বারে ঘুরেও কোনো ফল পাওয়া যায়নি। আজ হুইল চেয়ার পেয়ে আমি অনেক খুশি।’

উল্লেখ্য, রহিমা বেগমের পাশে দাঁড়িয়েছেন তার ভাগ্নি ভুসিভিটা গ্রামের মৃতঃ দবির উদ্দিনের স্ত্রী নুরবানু (৫০)। সদর ইউনিয়নের সদ্দার পাড়া গ্রামের বাসিন্দা রহিমা বেগম (৮৪) । তার স্বামী মারা গেছেন কয়েক বছর আগে। ছেলে- মেয়ে নেই তার। থাকা খাওয়ার কোন ব্যবস্থা নেই। একই ইউনিয়নের সদ্দার পাড়া গ্রামের আকতার আলীর সহযোগিতায় তার বাড়িতে কোন মতে দিনযাপন করছিলেন তিনি ।

এ বিষয়ে অসহায় বৃদ্ধা রহিমা বেগম বলেন, আল্লাহ ছাড়া সাহায্য করার কেউ ছিলনা। অনেক কষ্টে দিন পার করছিলাম । পরে আকতার আমাকে থাকার যায়গা দিয়ে সাহায্য করেছে। দুই পা কাজ করছেনা। পিঠে একটি ঘা উঠেছে। বিছানায় মলমূত্র ত্যাগ করছি। এরপর আকতার আমাকে ১ মাস পূর্বে আমার এই বিধবা নুরবানু ভাগ্নির বাসায় রেখে যায়। এখন মোঃ একরামুল হক মুন্না ও মোঃ রাশেদুজ্জামান এর মাধ্যমে মোঃ জহিরুল ইসলাম ভাই এর সহযোগিতায় আজ হুইল চেয়ার পেয়ে আমি অনেক খুশি।’

এ বিষয়ে মোঃ জহিরুল ইসলাম  দৈনিক সময়ের আলো প্রতিবেদককে জানান ‘পঞ্চগড়ে অসহায় দিনযাপন  বৃদ্ধা রহিমার’ শিরোনামে বরেন্দ্র নিউজে প্রকাশিত সংবাদটি আমার নজরে আসলে আমি বরেন্দ্র নিউজ এর প্রতিনিধির সাথে যোগাযোগ করি। এরপর আমার মনে হল বৃদ্ধা অসহায় মহিলাটি অনেক বিপদের মধ্যে রয়েছে। তাই হুইল চেয়ার টি কিনে দিলাম। নাম প্রকাশের কি আছে বিপদে মানুষ মানুষের পাশে এগিয়ে আসবে এটাই বড় কথা ।

এবিষয়ে উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা মোঃ আরিফ হোসেন এর সাথে কথা হলে তিনি বলেন, ঘটনাটি  আপনার কাছে জানতে পারে সাথে সাথে রহিমা বেগমকে সরকারি নিয়মানুসারে আমি  সদর ইউনিয়ন পরিষদ এর ভারপ্রাপ্ত চেয়ারম্যান মোঃ সিরাজুল ইসলাম এর মাধ্যমে চাল, ডাল, চিনি, সাবান, তৈল, লবন, হুইল, সহ নগদ অর্থ সহায়তা প্রদান করেছি ।

যেভাবে নিউজ পাঠাবেননিউজ পাঠাতে ইচ্ছুক যে কেউ [email protected] এই ঠিকানায় নিজের নাম, ঠিকানা ও মোবাইল নাম্বার দিয়ে নিউজ পাঠাতে পারেন। আমরা যাচাই বাচাই শেষে আপনার নিউজ যথারীতি প্রকাশ করবো। উল্লেখ্য, নিউজগুলো অবশ্যই পঞ্চগড় জেলার সম্পর্কিত হতে হবে।

এখানে আপনার মন্তব্য  জানান

বিষয়বস্তুর সঙ্গে মিল আছে এবং আপত্তিজনক নয়- এমন মন্তব্যই প্রদর্শিত হবে। মন্তব্যগুলো পাঠকের নিজস্ব মতামত, পঞ্চগড় অনলাইন ডট কম এর দায়ভার নেবে না।
Back to top button